নাসা স্পেস অ্যাপস চ্যালেঞ্জের সেরা পাঁচে বাংলাদেশের দুই প্রকল্প

 Home / নাসা স্পেস অ্যাপস চ্যালেঞ্জের সেরা পাঁচে বাংলাদেশের দুই প্রকল্প

নাসা স্পেস অ্যাপস চ্যালেঞ্জের সেরা পাঁচে বাংলাদেশের দুই প্রকল্প

যুক্তরাষ্ট্রের মহাকাশ গবেষণা সংস্থা নাসা আয়োজিত হ্যাকাথন প্রতিযোগিতা ‘নাসা স্পেস অ্যাপস চ্যালেঞ্জ ২০১৭’-এর সেরা পাঁচে স্থান পেয়েছে বাংলাদেশের দুটি প্রকল্প। পিপলস চয়েস বিভাগে স্থান পাওয়া প্রকল্পগুলো হলো—আত্ম-উন্মেষ (ATTO-UNMESH) ও টিম ইংলাইটাস (TEAM ENGLITAS)।

<iframe frameborder="0" height="1000px" name="f3902c8f546337" scrolling="no" src="https://www.facebook.com/v2.5/plugins/quote.php?app_id=&channel=http://staticxx.facebook.com/connect/xd_arbiter/r/lY4eZXm_YWu.js?version=42#cb=f241319ce67db4c&domain=www.dhakatimes24.com&origin=http://www.dhakatimes24.com/f3ced62c5cf700c&relation=parent.parent&container_width=1349&href=http://www.dhakatimes24.com/2017/05/25/34113/নাসা-স্পেস-অ্যাপস-চ্যালেঞ্জের-সেরা-পাঁচে-বাংলাদেশের-দুই-প্রকল্প&locale=en_US&sdk=joey" title="fb:quote Facebook Social Plugin" width="1000px"></iframe>

প্রাথমিক অনলাইন ভোটপর্বে বাংলাদেশের তিনটি দল প্রতিযোগিতা করে। চূড়ান্ত ভোটপর্বে বাংলাদেশের পাশাপাশি কসোভো, ভারত ও সাইপ্রাসের প্রকল্প রয়েছে। বাংলাদেশের প্রকল্পগুলোকে ভোট দিতে https://2017.spaceappschallenge.org/auth/signup ঠিকানায় প্রবেশ করে অ্যাকাউন্ট খুলতে হবে। এরপর https://2017.spaceappschallenge.org/vote ঠিকানায় প্রকল্প নির্বাচন করে আলাদাভাবে ভোট দিতে হবে। একটি অ্যাকাউন্ট থেকে দিনে একবার ভোট দেওয়া যাবে। ৫ জুন পর্যন্ত প্রতিদিনই ভোট দেওয়ার সুযোগ মিলবে।

এ বিষয়ে বাংলাদেশে নাসা স্পেস অ্যাপস চ্যালেঞ্জ আঞ্চলিক পর্বের যুগ্ম আহ্বায়ক ও বাংলাদেশ ইনোভেশন ফোরাম এর প্রধান আরিফুল হাসান অপু জানান, অনলাইন ভোটের জন্য র্নিবাচিত পাঁচটি প্রকল্প থেকে একটিকে বিজয়ী ঘোষণা করা হবে। বাংলাদেশকে বিজয়ী করতে দুটি দলকেই ভোট দেওয়া উচিত এছাড়া ও বেশি ভোট দেওয়ার আশায় নতুন নতুন  ই-মেইল অ্যাকাউন্ট খুলে ভোট দেওয়া থেকে বিরত থাকতে পরামর্শ দিয়েছেন। প্রতিদিন একবার করে ভোট দেওয়া যাবে।

সম্প্রতি বাংলাদেশে অনুষ্ঠিত নাসা স্পেস অ্যাপস চ্যালেঞ্জের আঞ্চলিক পর্বে মোট ১১টি প্রকল্প চূড়ান্ত পর্বের জন্য মনোনয়ন পায়। পিপলস চয়েস বিভাগে থাকা প্রকল্পগুলো অনলাইন ভোটে বিজয়ী হলেও বাকি প্রকল্পগুলো সরাসরি বিচারকরা পর্যালোচনা করবেন।